লক্ষ্মীপুরে শাশুড়ির মরদেহ উদ্ধার, পুত্রবধূ আটক

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে বসতঘর থেকে রহিমা নামের এক মধ্যবয়সী নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় তাহমিনা নামে ওই নারীর পুত্রবধূকে একই কক্ষ থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) দুপুরে নিহতের মরদেহ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। তাহমিনাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আটক করে পুলিশি হেফাজতে নেয়া হয়েছে। উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়নের রাঘবপুর গ্রাম এ ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন থেকে স্থানীয় আবু তাহের মিয়ার স্ত্রী রহিমা ও তার পুত্রবধূ প্রবাসী হুমায়ুন কবিরের স্ত্রী তাহমিনার সঙ্গে সাংসারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিবাদ চলে আসছিল। বিদেশ থেকে মা-বাবাকে টাকা না দেয়ায় রহিমার স্বামী ঢাকায় চাকরি করছিলেন। বউ-শাশুড়ির মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া হতো।

গতকাল বুধবার রাতে বউ-শাশুড়ির ফের ঝগড়া হয়। প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া হওয়ায় প্রতিবেশীরা কেউ এগিয়ে আসেন। সকালে তাদের কারো সাড়া না পেয়ে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসে। তারা জানালা দিয়ে দেখে, শাশুড়ি খাটের উপর আর তার পুত্রবধূ মেঝেতে পড়ে আছে। ভেতর থেকে দরজা লাগানো ছিল বলে জানান তারা। কেউ কেউ বলছেন, রাতে শ্বাসরোধ করে রহিমাকে হত্যা করা হয়েছে।

রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) কার্তিক চন্দ্র বিশ্বাস জানান, বন্ধ ঘর থেকে বৌ-শাশুড়িকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। পরে হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসক শাশুড়িকে মৃত ঘোষণা করেন। তার পুত্রবধূকে চিকিৎসা দিলে তার অবস্থার উন্নতি হয়।

এদিকে নিহতের স্বামী তার পুত্রবধূর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে দেখছেন বলে জানিয়েছেন।

You might like